চার মামলায় আরো ৮ দিনের রিমান্ডে হেলেনা

1001
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে পৃথক ৪ মামলায় আরও ১৪ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালত আজ মঙ্গলবার এ আদেশ দেন।

যে চারটি মামলায় এ আদেশ দেওয়া হয়েছে, সেগুলো হলো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইন ও প্রতারণাসংক্রান্ত অপরাধের মামলা।

আদালত–সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, গুলশান থানায় করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তিন দিন রিমান্ড শেষে আজ সকালে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। বেলা দুইটার দিকে পল্লবী থানায় করা প্রতারণা এবং টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আদালতে হাজির করে ৭ দিন করে ১৪ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করা হয়। উভয় পক্ষের শুনানি নিয়ে আদালত প্রতিটি মামলায় হেলেনাকে চার দিন করে মোট আট দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন।

এদিকে প্রতারণার অভিযোগে হেলেনা জাহাঙ্গীরের নামে পল্লবী থানায় গতকাল সোমবার বিকেলে আবদুর রহমান নামের এক ব্যক্তি বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলার এজাহারে আবদুর রহমান দাবি করেন, হেলেনা জাহাঙ্গীর তার মালিকানাধীন ‘জয়যাত্রা টেলিভিশনে’ ভোলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়ার নামে ৫৪ হাজার টাকা নিয়েছেন।

তিনি জয়যাত্রা টেলিভিশনে কয়েক মাস কাজ করেছেন। প্রতি মাসে তার কাছ থেকে তিন হাজার টাকা করে নিত ‘জয়যাত্রা টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ’।

এ ছাড়া হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও বন্য প্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনেও মামলা রয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার রাত আটটার দিকে হেলেনা জাহাঙ্গীরের গুলশানের বাসায় অভিযান চালায় র‍্যাব। প্রায় সোয়া চার ঘণ্টার অভিযানে ওই বাসা থেকে বিদেশি মদ, বিদেশি মুদ্রা, হরিণ ও ক্যাঙারুর চামড়া, ক্যাসিনোর সরঞ্জাম ও ওয়াকিটকি সেট উদ্ধার করা হয়।

এরপর রাত সোয়া ১২টার দিকে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটক করে র‍্যাবের সদর দপ্তরে নেওয়া হয়। এরপর রাত দুইটার দিকে র‍্যাবের একটি দল মিরপুরে হেলেনা জাহাঙ্গীরের মালিকানাধীন জয়যাত্রা টেলিভিশন ও জয়যাত্রা ফাউন্ডেশন ভবনে অভিযান চালায়। রাতভর ওই অভিযান চলে।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন