দ্রুততার সাথে ২৮০০ পদে নিয়োগ: স্বনির্ভর কর্মসংস্থানে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের ব্যাপক আয়োজন

1277
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
দেশের তরুণ-যুবকদের আধুনিক কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ করে গড়ে তুলে স্বনির্ভর আত্মকর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে ব্যাপক উদ্যোগ নিয়ে কাজ করছে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর। এরই অংশ হিসেবে কারিগরি ও ভোকেশনাল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে দক্ষ শিক্ষক নিয়োগ ও তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ, উন্নত ও আধুনিক কারিকুলাম প্রণয়ন এবং পর্যাপ্ত ল্যাবরেটরি স্থাপন করা হচ্ছে। শিক্ষক ঘাটতি পূরণে সম্প্রতি করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও অত্যন্ত দ্রুততার সাথে দুই হাজার ৮০০ পদে লোক নিয়োগ দেয়া হয়েছে । এছাড়া ৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের টার্গেট নিয়ে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর কাজ করছে বলে জানা গেছে।

সূত্রমতে, ১৩ থেকে ২০ তম গ্রেডের তিনটি পদে দুই হাজার ১৮১ জন শিক্ষক নিয়োগের জন্য গত ৩ মে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর। পদগুলো হচ্ছে-ক্রাফট ইনস্ট্রাক্টর (টিআর/ইলেকট্রনিক্স/টেক)-১০১৯ জন, ক্রাফট ইনস্ট্রাক্টর (সপ)-১০৫৭ জন এবং ক্রাফট ইনস্ট্রাক্টর (টিআর/ল্যাব)-১০৫ জন। এসব পদে প্রায় ২ লাখ নিয়োগ প্রত্যাশীর আবেদন জমা পড়ে। ১২ জুন অনুষ্ঠিত হয় পরীক্ষা। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ৭ হাজার জনের ভাইভা অনুষ্ঠিত হয় ১৩ থেকে ১৮ ই জুন। দ্রুত নিয়োগ কার্যক্রম সম্পন্ন করার জন্য ৯৬ টি বোর্ডের মাধ্যমে ৬ দিন ধরে ভাইভা নেওয়া হয়। সবশেষে ২১৮১ জনকে নিয়োগের আদেশ জারি করা হয় ২১ জুন। গত ১ জুলাই তারা যোগদান করেন।
সংশ্লিষ্টরা জানান, করোনাকালে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের মধ্যেও দ্রুত নিয়োগ পরীক্ষার রেজাল্ট প্রকাশ ও ভাইভা গ্রহণ সম্পন্ন করা হয়েছে, যাতে অযাচিত কোন হস্তক্ষেপের সুযোগ না থাকে।

এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি শিক্ষা ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিব মোঃ আমিনুল ইসলাম খান বলেন, নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের এক মাসের মাথায় প্রায় ৩ হাজার শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম চূড়ান্ত করা আমাদের জন্য খুব চ্যালেঞ্জিং ও অবিশ্বাস্য ছিল। তবে শিক্ষা মন্ত্রী, উপমন্ত্রী, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সহ সংশ্লিষ্ট সবার সহায়তার মাধ্যমে এই কাজ সম্ভব হয়েছে। দ্রুততার সঙ্গে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ায় এতে কোনো দুর্নীতি-অনিয়ম স্পর্শ করার সুযোগ পায়নি। সর্বোচ্চ সতর্কতার সাথে সব কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।
এ বিষয়ে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. হেলাল উদ্দিন এনডিসি বলেন, কারিগরি শিক্ষাকার্যক্রমকে গতিশীল করতে খুব দ্রুততার সঙ্গে ২৮০০ পদে নিয়োগ চুড়ান্ত করা হয়েছে। এক্ষেত্রে ৯৬টি বোর্ড গঠন করে ৬ দিনব্যাপী পর্যাপ্ত সদস্য দিয়ে ভাইভা সম্পন্ন করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, ২০২১ সালের মধ্যে দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করার লক্ষ্যকে সামনে রেখে কারিগরি শিক্ষার সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য ‘জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ত নীতি ২০১১’ প্রণয়ন করা হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাথে সংগতি রেখে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষায় অর্জিত জ্ঞান ও দক্ষতার মান নির্ধারণ এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির লক্ষ্যে জাতীয় কারিগরি ও বৃত্তিমূলক যোগ্যতা কাঠামো-‘ন্যাশনাল ট্রেনিং এন্ড ভোকেশনাল কোয়ালিফিকেশন ফ্রেমওয়ার্ক’ (এনটিভিকিউএফ) প্রণয়ন করা হয়েছে। এটি বাস্তবায়নে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে এনটিভিকিউএফ বিভাগ গঠন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে কারিগরি শিক্ষাকে যুগোপযোগী করার নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, স্বনির্ভর আত্ম-কর্মসংস্থানের প্রসারের জন্য কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের প্রয়োজনীয় ট্রেনিং প্রদান করা হচ্ছে। শিক্ষা কারিকুলামকে কথা হচ্ছে আধুনিক ও উন্নত। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ল্যাবরেটরিগুলোতে পর্যাপ্ত ইকুইপমেন্ট প্রদান করা হচ্ছে।

সূত্র মতে, গত এক বছরে দুই হাজার পদে নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে ২১৪৮ জন ফিজিক্স-কেমিস্ট্রিতে বিএসসি অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রীধারী। এছাড়া ৩৮ তম বিসিএসে যাদের নিয়োগ হয়নি, পিএসসি থেকে ৯০০+৩০০=১২০০ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়েছে। এতে মোট সাড়ে চার হাজার রিক্রুটমেন্ট হবে। ৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের টার্গেট নিয়ে কাজ করছে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর।

এদিকে বিভিন্ন কারিগরি ও ভোকেশনাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৫০ জনকে পদোন্নতি দিয়ে প্রিন্সিপাল ও ভাইস প্রিন্সিপাল করা হয়েছে। বর্তমান করোনা কালেও ২৫০ শিক্ষককে ২ মাস ধরে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। ৪/৫ শ শিক্ষককে অনলাইনে ইংরেজি কোর্স সম্পন্ন করা হয়েছে।

সূত্র মতে, কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ১৮০০ জন শিক্ষক আছে। আরো প্রায় দুই হাজার ২০০ জন শিক্ষক ক্রাফট ইনস্ট্রাক্টর হিসেবে ১ জুলাই যোগ হলো। কারিগরি শিক্ষাঅধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. হেলাল উদ্দিন এনডিসি বলেন, ট্রেড, টেকনোলজি ও অকুপেশন-এই তিন স্তরেই যুযোগযোগী সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নাধীন। সেগুলো হচ্ছে-কারিকুলাম আধুনিকায়ন করা; পর্যাপ্ত সংখ্যক ল্যাবরেটরি স্থাপন করা এবং শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিয়ে আন্তর্জাতিক মানের করে গড়ে তোলা। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গঠনে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের বর্তমান মন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর এগিয়ে যাচ্ছে। ভবিষ্যতে বছরে ২০ হাজার লোককে প্রশিক্ষণ দিয়ে আত্ম কর্মসংস্থানে স্বনির্ভরতা অর্জনের যোগ্য করে তোলা হবে।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন