কাবুলে ১২ বাংলাদেশি ও ১৬০ আফগান শিক্ষার্থী মার্কিন ঘাঁটিতে, ফিরছেন দেশে

1173
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

নানা উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠার পরে, অবশেষে আফগানিস্তানে আটকেপড়া ১২ বাংলাদেশি দেশে ফেরত আসছেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডক্টর একে আব্দুল মোমেন। তিনি জানান, তারা বিশেষ চার্টাড বিমানে করে দেশে ফেরত আসবেন। তাদের সঙ্গে আছেন দেশে অধ্যয়নরত আফগান শিক্ষার্থীরাও।

আফগানিস্তানের কাবুল বিমানবন্দর এলাকায় দফায় দফায় বিস্ফোরণের পর, দেশটি ছাড়তে মরিয়া বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের মধ্যে আতঙ্ক আরও বেড়ে যায়।

বাংলাদেশে অধ্যয়নরত দেশটির ১৬০ জন শিক্ষার্থী আসায় কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। শনিবার (২৮ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীর ইস্কাটনে এক নির্ধারিত সেমিনার শেষে সংবাদকর্মীদের সঙ্গে আলাপচারিতায় তিনি আরও বলেন, আটকেপড়া বাংলাদেশিরা নিরাপদে আছেন।

এদিন রাতেই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বরাত দিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় জানায়, আফগানিস্তানে আটকেপড়া ১২ বাংলাদেশি দেশটিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক ঘাঁটিতে পৌঁছেছেন। তাদের সঙ্গে বাংলাদেশ অধ্যয়নরত আফগান শিক্ষার্থীরাও রয়েছেন। বিশেষ চার্টার্ড বিমানে করে তারা বাংলাদেশে ফেরত আসছেন।

ইতোমধ্যে আফগানিস্তান থেকে দেশে ফিরে এসেছেন ব্র্যাকের তিন বাংলাদেশি কর্মী। আফগানিস্তান থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে আন্তর্জাতিক সেনা প্রত্যাহার শুরুর পর থেকে দেশটিতে ক্রমবর্ধমান সহিংসতার পরিপ্রেক্ষিতে ব্র্যাক তার কর্মীদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিতে ব্যবস্থা নেয়।

গত ১৯ বছরের বেশি সময় ধরে আফগানিস্তানে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কমিউনিটির উন্নয়ন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত সহায়তা, মানবিক সহায়তা এবং খাদ্য নিরাপত্তা সংক্রান্ত সেবা দিয়ে আসছে ব্র্যাক ইন্টারন্যাশনাল।

তালেবান কাবুল দখল করে নেওয়ার পর আতঙ্ক কাজ করছে আফগানিস্তানের সাধারণ মানুষের মধ্যে। অনেকেই ইতোমধ্যে দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন। কাবুল বিমানবন্দরে আত্মঘাতী এক হামলায় ১৭০ জনের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। নিহতদের মধ্যে ১৩ মার্কিন সেনা ও ২৮ তালেবান সদস্যও রয়েছে। শুক্রবার (২৭ আগস্ট) আফগানিস্তানের জনস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাতে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এমন দাবি করে।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন