খাদ্য সংকটে আফগানিস্তান, এগিয়ে আসছে না কেউ

1177
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

তালেবানের হাতে শাসনভার যাওয়ার পর চরম মানবিক বিপর্যয়ের মুখে আফগানিস্তান। চরম খাদ্য সংকটে দেশটির এক তৃতীয়াংশ মানুষ। দেশত্যাগে মরিয়া সাধারণ আফগানরা ভিড় করছেন প্রতিবেশী দেশগুলোর সীমান্তে।

এ অবস্থায় প্রতিবেশী দেশগুলোকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সীমান্তে আটকেপড়া এসব আফগান নাগরিক।

এদিকে শর্তসাপেক্ষে ও মানবাধিকার নিশ্চিত করলে তালেবানকে স্বীকৃতি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনী আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার আনন্দ যেন থামছেই না। বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) কান্দাহারে যুক্তরাষ্ট্রের ফেলে যাওয়া সাঁজোয়া যানে করে অস্ত্র উঁচিয়ে বিজয়োল্লাস করে তালেবান সদস্যরা।

তালেবান আফগানিস্তানের শাসনভার নেওয়ার দুই সপ্তাহ হয়ে গেলেও এখনো অনিশ্চিত ভবিষ্যতে রয়েছে অসংখ্য মানুষ। দারিদ্র্যতা গ্রাস করেছে পুরো আফগানিস্তান। দেশ ছাড়তে মরিয়া সাধারণ আফগানরা ভিড় করেছেন পাকিস্তান সীমান্তে।

আফগানিস্তানের মানবিক সংকট নিয়ে সতর্ক করেছে জাতিসংঘও। দেশটির এক তৃতীয়াংশ মানুষের খাদ্যের অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। আফগানিস্তানের মানবিক সংকট মোকাবিলায় শিগগিরই জরুরি ভিত্তিতে তহবিল গঠনের জন্য ধনী দেশগুলোর কাছে আহ্বান জানানো হবে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত দেশটির বিশেষ দূত রামিজ আলাকবারোভ।

এদিকে আফগানিস্তান শাসনে তালেবানকে সমর্থন দেওয়া না দেওয়া নিয়ে হিসাব-নিকাশ শুরু হয়েছে বিশ্বজুড়ে। মার্কিন বাহিনী তালেবানের হাতে আফগানিস্তানের শাসনভার দিয়ে আসলেও গোষ্ঠীটি আগের মতো নির্দয় অবস্থানেই আছে নাকি পরিবর্তন হয়েছে, তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন মার্কিন সামরিক বাহিনীর প্রধান জেনারেল মার্ক মিলি।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তালেবানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করলেও এখনি আনুষ্ঠানিকভাবে দেশ চালানোর স্বীকৃতি দেবে না জোটটি। মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা ও বিশেষ কিছু শর্ত মেনে নিলেই তবে স্বীকৃতির বিষয়ে চিন্তাভাবনা করবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন