জলবায়ু বিষয়ে ৪ প্রস্তাব দেবেন প্রধানমন্ত্রী

651
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

বৈশ্বিক তাপমাত্রা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রাখা, জলবায়ু তহবিলের অর্থছাড়াসহ চার প্রস্তাব নিয়ে গ্লাসগোর জলবায়ু সম্মেলনে গেলেন প্রধানমন্ত্রী। জলবায়ু ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর জন্য জরুরি তহবিল নিয়ে এগিয়ে আসতে বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় গতকাল রোববার স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোয় শুরু হয়েছে জলবায়ু সম্মেলন বা কপ-২৬। জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দিতে রোববার সকালে ঢাকা ছাড়েন শেখ হাসিনা, এখন আছেন স্কটল্যান্ডে।

নিউজ উইকে লেখা এক নিবন্ধে অর্থছাড়েও গুরুত্ব দিয়েছেন তিনি। সোমবার রাতে শীর্ষ সম্মেলনে বক্তব্যে ৪টি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব তুলে ধরবেন শেখ হাসিনা।

এছাড়া দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বসবেন শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ও অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে। যোগ দেবেন ওমেন এন্ড ক্লাইমেট চেঞ্জ শীর্ষক আলোচনা সভা ও কমনওয়েলথের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে।

জলবায়ু প্রশ্নে মার্কিন সাময়িকী নিউজ উইকে, গ্লোবাল সেন্টার অন অ্যাডাপ্টেশনের এর প্রধান নির্বাহী প্যাট্রিক ভারকুইজেনের সঙ্গে যৌথভাবে একটি নিবন্ধও লিখেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাতে বাংলাদেশসহ ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর জন্য জলবায়ু তহবিলে ১০০ বিলিয়ন ডলারের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে, দ্রুত অর্থছাড়ে জোর দিয়েছেন তিনি।

স্কটল্যান্ড থেকে ৩রা নভেম্বর লন্ডন, ৯ই নভেম্বর ফ্রান্সে যাবেন শেখ হাসিনা। লন্ডনে বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট সামিট, প্যারিসে ফরাসি-প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির সঙ্গে হবে তার বৈঠক। ১৩ই নভেম্বর রওনা হয়ে ১৪ই নভেম্বর দেশে ফেরার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর।

জি-২০–এর নেতারা চলতি শতকের শেষে বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধির হার দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে সীমিত রাখার লক্ষ্যের প্রতি তাঁদের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছেন। তবে তা অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় কী কী পদক্ষেপ তাঁরা গ্রহণ করবেন, তার সামান্যই প্রকাশ করা হয়েছে। বিশেষ করে ২০৫০ সালের মধ্যে নেট জিরো বা যতটা ক্ষতিকর গ্যাস নির্গমন হচ্ছে, ততটাই বায়ুমণ্ডল থেকে অপসারণের বিষয়ে অস্পষ্টতা রয়ে গেছে।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন