কোচবিহারে বিএসএফের গু লিতে বাংলাদেশিসহ নি হ ত ৩

585
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহারের সাতভাণ্ডারী সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে তিনজন নিহত হয়েছে। গরু পাচারকারী সন্দেহে এই গুলি চালানো হয়েছে বলে জানা গেছে। নিহতদের মধ্যে রয়েছেন দু’‌জন বাংলাদেশি ও একজন ভারতীয় নাগরিক। এই ঘটনা সামনে আসতেই ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে সিতাই থানার পুলিশ। হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

বিএসএফের দাবি, এই তিনজন গরু পাচারের সঙ্গে যুক্ত। তবে নির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ আছে বলে প্রমাণ মেলেনি। এই নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। কোচবিহারের সীমান্তে এই ঘটনা এখন আলোচনার কেন্দ্রে উঠে এসেছে। কী এমন ঘটল যে গুলি চালাতে হয়েছিল?‌ কোন প্রমাণের ভিত্তিতে এই গুলি চলল?‌ এইসব প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

বিএসএফ বলছে, শুক্রবার (১২ নভেম্বর) ভোরে কোচবিহারের সিতাই থানা এলাকার সাতভাণ্ডারী সীমান্ত দিয়ে গরু পাচার করার চেষ্টা করছিল এই তিনজন। একজন ভারতীয় গরু পৌঁছে দিচ্ছিলেন কাঁটাতারের বেড়ার কাছে। তা চোখে পড়তেই বাধা দেন বিএসএফ সদস্যরা। তখনই জওয়ানদের লক্ষ্য করে ইট ছুঁড়তে থাকে এই তিনজন গরু পাচারকারী। তাই বাধ্য হয়ে গুলি চালায় তারা। তার জেরেই মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। ভারতীয় নাগরিকের দেহটি পড়ে রয়েছে সিতাইয়ে। আর বাংলাদেশ ভূখণ্ডে রয়েছে নিহত দুই বাংলাদেশির দেহ।

তবে সূত্রের খবর অনুযায়ী, বিএসএফ সদস্যরা মিথ্যা কথা বলছেন। ওই ভারতীয় গরু পাচারের সঙ্গে যুক্ত ছিল না। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়েছে সিতাই এলাকায়। বাধ্য হয়ে সেখানে আসে সিতাই থানার পুলিশ। কিন্তু তাতে পরিস্থিতি আরও জটিল হয়েছে। পুলিশ এখন এই ঘটনা কীভাবে ঘটল তা জানার চেষ্টা করছে। একইসঙ্গে মৃতদের নাম-পরিচয় জানারও চেষ্টা চালাচ্ছে।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন