এলডিসি উত্তরণে ঢাকা-মালে সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ

638
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

একই সঙ্গে এলডিসি উত্তরণে ২০২১ সালকে ঢাকা-মালের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মালদ্বীপের পার্লামেন্টে ভাষণে দুদেশের উষ্ণ সর্ম্পকের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে প্রতিবেশী দেশকে সঙ্গে নিয়েই এগুতে চায় বাংলাদেশ।

জাতি গঠনে সংসদ সদস্যদের ত্যাগ ও সংগ্রামের কথা তুলে ধরে মালদ্বীপের জাতীয় সংসদ পিপলস মজলিসে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় দুদেশের মধ্যে থাকা ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ককে আরো গভীর করতে সহযোগিতা বাড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আপনার উন্নয়নের যাত্রা, এলডিসি থেকে মধ্যম আয়ের দেশে আপনার সফল উত্তরণ প্রত্যক্ষ করে আমরা বিশেষভাবে উৎসাহিত হয়েছি এবং আমরা আশা করি, বাংলাদেশ ও মালদ্বীপ পরিপূরকতাগুলোকে কাজে লাগাবে।

২০২১ সালটি বাংলাদেশ-মালদ্বীপ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের একটি যুগান্তকারী বছর উল্লেখ করে তিনি বলেন, যেখানে উচ্চ পর্যায়ের সফর বিনিময়, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মধ্যে ফলপ্রসূ দ্বিপাক্ষিক আলোচনা এবং দ্বিপাক্ষিক স্বার্থের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতার শুভেচ্ছা বিনিময় হয়েছে।

মালদ্বীপের জাতীয় সংসদ পিপলস মজলিসে বাংলাদেশি প্রধানমন্ত্রীর আগমনে স্পিকার মোহাম্মদ নাশিদ এবং ডেপুটি স্পিকার তাকে স্বাগত জানান। প্রধানমন্ত্রী পরে দর্শনার্থী বইয়ে স্বাক্ষর করেন এবং মালদ্বীপের সংসদের স্পিকারের সঙ্গে বৈঠক করেন।

বাংলাদেশের সঙ্গে মালদ্বীপেরও এলসিডিতে উত্তরণ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, এর মাধ্যমে দুদেশের অগ্রযাত্রায় নতুন মাত্রা যুক্ত হলো। আগামী ৫০ বছরে এ যাত্রায় আসবে অর্থবহুল পরিবর্তন ও সমৃদ্ধি।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশকে সঙ্গে নিয়েই এগুতে চায় জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের স্বাধীনতা ও মুক্তির পথ সহজ ছিল না। জাতির পিতা বাংলার মানুষের সুখের জন্য সারাজীবন সংগ্রাম করেছেন। তিনি ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত ২৪ বছরের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে প্রায় ১৩ বছর জেলে কাটিয়েছেন। জাতির পিতা ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি স্বদেশে ফিরে আসার পর তার জনগণের জন্য দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটির পুনর্গঠন ও পুননির্মাণ শুরু করে সাত্র সাড়ে তিন বছরে একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত সদ্যজাত দেশকে স্বল্পোন্নত দেশের পর্যায়ে উন্নীত করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ ও মালদ্বীপ যৌথ কাজের পরিধি আরো বিস্তৃত করতে পারে। বাণিজ্য-বিনিয়োগ থেকে শুরু করে পর্যটন ও সামাজিক যোগাযোগে পরিসর বড় করতে আমি দুই দেশের সরকার ও বেসরকারি খাতকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানাই।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, আমাদের উন্নয়ন যাত্রার ধারাবাহিকতায় ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তর করার লক্ষ্য বাস্তবায়িত হবার পর এখন লক্ষ্য হচ্ছে ২০৩১ সালের মধ্যে এসডিজির সব লক্ষ্যমাত্রা পূরণ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে জ্ঞানভিত্তিক উন্নত দেশে পরিণত করা এবং ২১০০ সালের মধ্যে একটি সমৃদ্ধ এবং স্থিতিস্থাপক ডেল্টায় পরিণত করা।

মালদ্বীপের প্রেসিডেন্টের আমন্ত্রণে ৬ দিনের সরকারি সফরে মালে অবস্থান করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে সফরের দ্বিতীয় দিনে বৃহস্পতিবার সকালে মালের জমহুরি ময়দানে তাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা ও গার্ড অব অনার দিয়ে আনুষ্ঠানিক অভ্যর্থনা জানান রাষ্ট্রপতি মোহামেদ সলিহ।

পরে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে দুই নেতা বসেন দ্বিপাক্ষি বৈঠকে। এসময় একটি চুক্তি ও দুটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়। মালদ্বীপের কাছে বাংলাদেশ হস্তান্তর করে ১৩টি সামরিক যানের প্রতীকী চাবি।

৬ দিনের রাষ্ট্রীয় সফর শেষে ২৭ ডিসেম্বর দেশে ফিরবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন