তৈমূরকে কেন্দ্র করে দুই ভাগ নারায়ণগঞ্জ বিএনপি

547
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

তৈমূরকে নিয়ে দুই ভাগ হয়ে গেছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। একটি পক্ষ বলছে, বিএনপির সাথে বেঈমানি করেছে তৈমূর আলম। অপর পক্ষটি বলছে, তৈমূরকে ছেড়ে আসলে নেতাকর্মীরা তাদের বেঈমান বলবে।
তবে, দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে যারা এখনো তৈমূরের পক্ষে মাঠে নির্বাচনে আছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলছে স্থানীয় বিএনপি।

বিএনপি নির্বাচনে না আসলেও, স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন তৈমূর আলম খন্দকার। পরে বিএনপির দুই পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয় তাকে। বিএনপির এই সিদ্ধান্তে তার ভোট বাড়ছে বলে দাবি করেন তৈমূর আলম খন্দকার। দলের সিদ্ধান্তের বাইরে তৈমূর আলম খন্দকারের নির্বাচন এবং অব্যাহতির পরও এমন মন্তব্যে প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে।

কারো কারো দাবি, দলের সাথে বেঈমানি করেছেন তৈমূর আলম।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. শাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, রাজনীতি করা অবস্থায় বা পদে বহাল থাকা অবস্থার কেউ যদি দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচন করে তাহলে সেটা বেঈমানি। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তৈমূর যেসব কথা বলছেন তাও জনগণের সাথে প্রতারণা বলেও মন্তব্য করেন শাখাওয়াত হোসেন।

মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল বলছেন, তৈমূরের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে অনেক দেরি করেছে বিএনপি। তাই এখন সরে আসা সম্ভব নয়। নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির এ নেতা বলেন, তৈমূরের বিষয়ে দলের নেয়া সিদ্ধান্ত একটু বিলম্ব হয়েছে। তারপরও আমরা তৈমূর আলম খন্দকারের পাশে আছি কারণ আমাদের ডাকে হাজার হাজার নেতাকর্মী মাঠে নেমেছে। এখন যদি এসব নেতাকর্মীকে মাঠে রেখে আমরা ঘরে প্রবেশ করি তাহলে তাদের সঙ্গে বেঈমানি করা হবে। তারা আমাদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাবেন।

এদিকে, দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যারা এখনো তৈমূরের পক্ষে কাজ করছেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলছেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির নতুন আহ্বায়ক। তৈমূরকে বিএনপি থেকে অব্যাহতি ও এর পরবর্তী নানা ঘটনাই এখন টক অব দ্যা নারায়ণগঞ্জ।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন