গণপরিবহণে অপরাধ বন্ধে চালু হচ্ছে ‘পুশ বাটন’

769
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

প্যানিক বা পুশ বাটন, যা বাস কিংবা গণপরিবহণের ভেতর থেকে চাপ দিলে, সেই বার্তা চলে যাবে জাতীয় জরুরি সেবার ৯৯৯ নম্বরে এবং স্থানীয় থানা পুলিশের কাছেও। এতে, তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে উপস্থিত হতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।
গণপরিবহণে রাত্রীকালীন ডাকাতি কিংবা ধর্ষণের মতো অপরাধ রোধে চালু করা হচ্ছে এ ‘পুশ বাটন’।

রাতে গণপরিবহণ কিংবা বাসে ডাকাতি বা অপরাধের ঘটনা অনেক পুরনো। গণপরিবহণে যাত্রীদের মালামাল লুট ছাড়াও অমানবিক আচরণের ঘটনা ঘটে। অনেক নারী যাত্রী হয়রানির শিকারও হন।

এমনই এক ডাকাতির শিকার বাসযাত্রী আদনান সৈকত বলেন, ‘রাতের শেষ বাসে উঠেছিলাম। ৫ থেকে ৬ জনের এক দল ডাকাত যাত্রীবেশে বাসে উঠে। বাসটি কাঁচপুর ব্রীজ পার হতেই তারা সক্রিয় হয়ে উঠে। নানা রকম অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে যাত্রীদের সর্বস্ব লুট করে ফের বাস থেকে নেমে যায় ডাকাতরা।

এরকম অপরাধ ঠেকাতে পুলিশের উদ্যোগে চালু করা হচ্ছে বাটনটি। ডিজিটাল এ ডিভাইসটির একটি বাটন থাকবে চালকের আসনের পাশে। যা জানা থাকবে শুধু চালক এবং তার সহযোগীর।

যাত্রীদের জন্যও থাকবে আরেকটি বাটন। গণপরিবহণে রাতে ডাকাতের কবলে পড়লে সঙ্গে সঙ্গে বাসের চালক-সহযোগী কিংবা যাত্রী যে কেউ এই বাটনে চাপ দিলে, তা চলে যাবে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ। আরেকটি মেসেজ জিপিআরএস এর মাধ্যমে পাবে স্থানীয় পুলিশ।

ডিএমপি গোয়েন্দা বিভাগ উপ কমিশনার (তেজগাঁও) ওয়াহিদুল ইসলাম জানান, একটি গাড়ি কখন কোথায় যাচ্ছে, তার সকল রুট হিস্ট্রি এবং পাশাপাশি ডাকাত বা অন্যান্য অপরাধের সংকেত, সবই জানা যাবে এই বাটনের মাধ্যমে।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা কাজ করে যাচ্ছি সেটআপের জন্য। গাবতলীতে টাওয়ার বসানোর কাজ শেষের পর্যায়। আশা করি অল্প সময়ের মধ্যেই আমরা সেবাটি চালু করতে পারব।’

অপরাধ ও হয়রানি রোধে ডিভাইসটি কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেছে পুলিশ।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন