এবার ৩৫ রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত ফ্রান্সের

131
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

ইউক্রেন সংঘাতের জেরে ৩৫ রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফ্রান্স। এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানানোর কথা জানিয়েছে রাশিয়া। খবর ডেইলি সাবাহর।

ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, রাশিয়ার পদক্ষেপ আমাদের নিরাপত্তা স্বার্থের বিরুদ্ধে গেছে। ইউরোপীয়দের পদক্ষেপের অংশ হিসেবে রুশ কূটনীতিকদের অপসরাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ফ্রান্সভিত্তিক বার্তা সংস্থা এএফপিকে মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, ৩৫ রুশ কূটনীতিককে অপসারণ করবে ফ্রান্স।

মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, আমাদের প্রথম দায়িত্ব হলো ফ্রান্স ও ইউরোপের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

সোমবার (৪ এপ্রিল) রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে উদ্বৃত করে বার্তাসংস্থা ইন্টারফ্যাক্স জানিয়েছে, মস্কো ফ্রান্সের পদক্ষেপের ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানাবে।

এদিকে রাশিয়ার চল্লিশ কূটনীতিককে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে জার্মানি। পাঁচ দিনের মধ্যে দেশটি ছেড়ে তাদের চলে যেতে বলা হয়েছে। রুশ সংবাদমাধ্যম আরটি এমন খবর দিয়েছে।

সোমবার জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আন্নালেনা বিয়ারবক বলেন, রাশিয়ার দূতাবাসের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কূটনীতিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। তারা নিয়মিত আমাদের স্বাধীনতা ও সামাজিক সংহতির বিরুদ্ধে এখানে সক্রিয়ভাবে কাজ করছেন। তাদের আর সহ্য করা যায় না।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা গোয়েন্দা বাহিনীর হয়ে কাজ করছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। যে কারণে অন্তত চল্লিশ রুশ কূটনীতিকে বহিষ্কার করে দেওয়া হয়েছে।

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বুকা শহরের দৃশ্যপট রুশ নেতৃত্ব ও যারা তাদের প্রপাগান্ডা ছড়াচ্ছেন তাদের অবিশ্বাস্য নৃশংসতার সাক্ষ্য দেয়।

শহরটি থেকে রুশ সেনা প্রত্যাহারের পর সেখানে শত শত বেসামরিক নাগরিকের মরদেহ পাওয়া গেছে। ইউক্রেনের অভিযোগ, রাশিয়ার সামরিক বাহিনী গণহত্যা চালিয়েছে। কিন্তু মস্কো সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

কিয়েভের শহরতলি সম্প্রতি রুশ বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে ছিল। এ হত্যাকাণ্ডের জন্য কিয়েভের সঙ্গে তাল মিলিয়ে পশ্চিমা রাজনীতিবিদরাও রাশিয়াকে দায়ী করছেন। যদিও এ ঘটনায় স্বাধীনভাবে তদন্ত করতে পারেনি কেউ।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন