আদালত কেন মধ্যরাত পর্যন্ত খোলা ছিল, প্রশ্ন ইমরানের

159
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

পাকিস্তানের আদালতের দরজা কেন মধ্যরাত পর্যন্ত খোলা ছিল— সেই প্রশ্ন তুলেছেন পাকিস্তানের সদ্যবিদায়ী প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

বুধবার (১৩ এপ্রিল) পেশোয়ারে এক সমাবেশে এ প্রশ্ন তোলেন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) চেয়ারম্যান। খবর জিও নিউজের।

পিটিআই চেয়ারম্যান বলেন, রাতেও আদালত খোলা ছিল কেন? আমি কি কোনো আইন ভঙ্গ করেছিলাম?

তিনি বলেন, আমি পাকিস্তানের জন্য বেঁচে থাকব এবং পাকিস্তানের জন্যই মরব।

ইমরান খান বলেন, তিনি বিরোধীদের জন্য এখন আরও বিপজ্জনক হবেন।

ইমরান খান দাবি করেন, প্রতিবার প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতাচ্যুত করার সময় মানুষ উল্লাস করেছে। কিন্তু তাকে যখন ক্ষমতাচ্যুত করা হলো জনগণ বিক্ষোভ করেছে।

ইমরানের পতনের পর পাকিস্তানজুড়ে তার সমর্থনে ব্যাপক বিক্ষোভের প্রসঙ্গ টেনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমরা আমদানি করা সরকার মেনে নেব না। জনগণ এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র আমাদের ওপর এই সরকারকে চাপিয়ে দিয়ে পাকিস্তানকে অপমান করেছে।

ইমরান আরও বলেন, জুলফিকার আলি ভুট্টোও যুক্তরাষ্ট্রের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছিলেন। কিন্তু ১৯৭০ সালের পাকিস্তান এখন নেই। এটি এখন নয়া পাকিস্তান।

ইমরান খানের ক্ষমতাচ্যুতির বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পৃক্ততা অস্বীকার করে আসছে হোয়াইট হাউস ও মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

ইমরানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর ৯ এপ্রিল ভোট গ্রহণের সময় বেঁধে দিয়েছিলেন সুপ্রিম কোর্ট।

নির্দিষ্ট সময় ভোট হচ্ছে কি না, তা দেখতে খোলা ছিল সর্বোচ্চ আদালত। এছাড়া আরেকটি আবেদনের শুনানি করতে ইসলামাবাদ হাইকোর্টও মধ্যরাত পর্যন্ত খোলা ছিল।

দেশটির জাতীয় পরিষদ প্রায় মধ্যরাত পর্যন্ত অনাস্থার ওপর ভোট আয়োজন করেনি। একপর্যায়ে স্পিকার আসাদ কায়সার পদত্যাগ করেন। পরে অনাস্থা প্রস্তাবের আয়োজন করেন আইনপ্রণেতা আয়াজ সাদিক। তিনি ৯ এপ্রিল রাত ১২টা বাজার ১০ মিনিট ভোট আয়োজন করেন এবং সেই ভোটে ইমরানের পতন ঘটে।

পাকিস্তানের ২৩তম প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন বিরোধীদলীয় নেতা পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) সভাপতি শাহবাজ খান।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন