বছরে দেশে আসছে তিন হাজার প্রবাসীর মরদেহ

110
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

প্রবাসে বাংলাদেশি কর্মীর মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। বছরে গড়ে প্রায় তিন হাজার প্রবাসীর মরদেহ দেশে আসছে। তবে ২০২১ সালে এসেছে সাড়ে তিন হাজারের বেশি। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মৃত্যুর কারণ জানানো হয়, হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক, দুর্ঘটনা ও আত্মহত্যা। প্রকৃত কারণ জানতে দেশে মরদেহ ময়নাতদন্তের চিন্তা করছে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়।

২০১৯ সালে সৌদি আরব থেকে ফেরত আসে খুলনার আবিরন বেগমের মরদেহ। প্রথমে দুর্ঘটনায় মৃত্যু জানানো হলেও পরে বেরিয়ে আসে, পিটিয়ে গরম পানি দিয়ে ঝলসে হত্যা করা হয় আবিরনকে। খুনের মামলায় মৃত্যুদণ্ড হয় সৌদিতে আবিরনের গৃহকর্তী আয়েশা আল জিজানির।

বিমানবন্দর থেকে জানা গেছে, প্রতিদিন গড়ে ১৫ থেকে ১৮ জন প্রবাসী কর্মীর মরদেহ দেশে ফেরে।

২০২০ সালে মরদেহ ফিরেছে ২ হাজার ৯০৭ জনের। ২০২১ সালে এসেছে ৩ হাজার ৫৯১ মরদেহ। এর মধ্যে মালয়েশিয়া থেকে ৬৯৬ এবং সৌদি আরব থেকে ১২৬৬। এ বছর ৩ মাসেই ফিরেছে ৮৭৫ মরদেহ। বেশিরভাগেরই মৃত্যুর কারণ জানানো হয়েছে স্ট্রোক, হার্ট অ্যাটাক, দুর্ঘটনা ও আত্মহত্যা।

প্রবাসীদের মৃত্যুতে দেশে ময়নাতদন্ত করা হয় না। ফলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যায় না বলে মনে করেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী।

বিভিন্ন দূতাবাস সূত্র বলছে, মরদেহের খরচ বহন ও আইনি জটিলতার কারণে প্রবাসে নিহত অর্ধেক কর্মীর মরদেহ বিদেশেই দাফন করা হয়। ফলে প্রবাসে মৃত্যুর সঠিক হিসাব নেই কারো কাছে।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন