চীনা কোম্পানিগুলো বাংলাদেশে কর ফাঁকি ও জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত

234
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চীনা কোম্পানিগুলো বাংলাদেশের ভূমি আইন লঙ্ঘন করে সরকারি কোষাগারের ক্ষতি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। চীনের সরকার-অনুষঙ্গী কোম্পানিগুলো অভ্যাসগতভাবে দুর্নীতি ও অপরাধপ্রবণতা ব্যবহার করে শুধু বাংলাদেশে নয়, সমগ্র দক্ষিণ এশিয়ায় অনৈতিক সুবিধা লাভের জন্য। বাংলাদেশে চীনা কোম্পানিগুলোর অনিয়মের দীর্ঘ তালিকায় সম্প্রতি যোগ হয় কর ফাঁকির নতুন একটি ঘটনা যা বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ মে মাসে উদ্ঘাটন করেছে।

চীনের গুয়াংডংয়ের শেনজেনে অবস্থিত গ্লোবাল পেট প্রোডাক্টস কোম্পানি লিমিটেডের একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান সিনো-কেমেড ট্রেডিং কোং তার ঢাকা ভিত্তিক সহযোগী ‘এনবি ট্রেডিং হাউস’-এর কাছে প্রলিপ্ত ক্যালসিয়াম কার্বনেটের চালান পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে। তবে পরীক্ষার সময় বাংলাদেশের কর্মকর্তারা ১২০ টন উচ্চ মূল্যের ডেক্সট্রোজ মনোহাইড্রেট উদ্ধার করেন। ডেক্সট্রোজটি লুকিয়ে রাখা হয়েছিল কারণ লেবেলটি ভিতরে প্রলিপ্ত ক্যালসিয়াম কার্বনেটের ছিল।

চীন থেকে উদ্ভূত চালানটি মার্চ মাসে চট্টগ্রাম বন্দরে এসে পৌঁছেছিল এবং পাঁচটি কনটেইনারে ভাশি শিপিং প্রাইভেট লিমিটেডের অধীনে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সময়মতো এটি সনাক্ত না করা হলে এতে বাংলাদেশের সরকারি কোষাগারের ৪২ লাখ ১৩ হাজার টাকার ক্ষতি হতো।

কিছু গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে বন্দর কর্তৃপক্ষ/কাস্টমস চীনা কোম্পানিগুলোর নাম ও আসল পরিচয় প্রকাশ না করার জন্য ঊর্ধ্বতন পর্যায় থেকে প্রচণ্ড চাপের মধ্যে ছিল। বাংলাদেশে কর জালিয়াতির সাথে জড়িত তাদের কোম্পানির সম্পৃক্ততা তুলে ধরে গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে চীনা কর্তৃপক্ষ স্পষ্টতই উদ্বিগ্ন ছিল। এই প্রথম না, এর আগেও চীনা কোম্পানিগুলোও বাংলাদেশে কর ফাঁকির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

২০২১ সালের ডিসেম্বরে, বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ উদ্ঘাটন করেছিল যে বাংলাদেশে সড়ক ও সেতু নির্মাণে নিযুক্ত চায়না রোড অ্যান্ড ব্রিজ কর্পোরেশন (সিআরবিসি) সরকারি প্রকল্পের নির্মাণ সামগ্রী আমদানি করার সময় কর ফাঁকির সাথে জড়িত ছিল।

‘ডিজিট অ্যান্টি ফেক কোম্পানি লিমিটেড’ (ডিএএফসি) নামে আরেকটি চীনা কোম্পানি জাল ব্যান্ডরোল (বিড়ি এবং সিগারেটের প্যাকেটে মোড়ানো একটি পাতলা ফিতা) সরবরাহ করেছিল যার ফলে বাংলাদেশে ২৫০ কোটি টাকারও বেশি কর ফাঁকি দেওয়া হয়েছে। জাল পাসপোর্ট, ব্যালট পেপার, জাতীয় পরিচয়পত্র, জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রভৃতি ছাপানোর সঙ্গেও সংস্থাটিকে জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে। চুরির আরেকটি মামলায়, চীনা কোম্পানি কমফলাই আউটডোর কোম্পানি লিমিটেডের একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান টিয়ানে আউটডোর (বিডি) কোম্পানি লিমিটেড (টিওসিএল) প্রায় ২১ কোটি টাকার কর ফাঁকি ও জালিয়াতির অভিযোগ এনেছিল। নিয়মিত পরিদর্শনের সময়, বাংলাদেশের কর্মকর্তারা চালান থেকে উচ্চ শুল্কযুক্ত বিদেশী সিগারেট উদ্ধার করেছিলেন, যা অন্যথায় চীন থেকে তুলার সুতা রয়েছে বলে ঘোষণা করা হয়েছিল।

চীনের ঋণ ফাঁদ নীতির কারণে শ্রীলঙ্কার সম্পূর্ণ পতনের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশে চীনের ভাবমূর্তি ইতিমধ্যেই ক্ষুন্ন হচ্ছে। চীনা কোম্পানিগুলোর দুর্নীতিপরায়ণতা তাদের বিশ্বাসযোগ্যতাকে আরও ক্ষুণ্ন করছে। সম্প্রতি, বাংলাদেশ সরকার তার একটি রেল প্রকল্পের জন্য চীনা তহবিল বাতিল করেছে এবং বিদ্যমান আখাউড়া-সিলেট মিটারগেজ রেল সড়ককে ডুয়েলগেজে এবং জয়দেবপুর-ঈশ্বরদী ডাবলগেজ প্রকল্পে রূপান্তর সহ অন্যান্য প্রকল্পের জন্য বিকল্প অর্থায়নের বিকল্পের কথা ভাবছে বলে জানা গেছে। যদিও বেজিং নিজেকে একটি নির্ভরযোগ্য অর্থনৈতিক অংশীদার হিসাবে দাবি করে, তার অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব প্রাপক দেশগুলির জন্য একটি আলবাট্রস হিসাবে পরিণত হচ্ছে বলে মনে হচ্ছে।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন