বেশ কিছু চীনা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ খাতে অনৈতিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত

77
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চীনা কোম্পানিগুলো দেশের নির্মাণ খাতে অবৈধ কর্মকাণ্ড ও জাল কাগজপত্র ছাপানোর সঙ্গে জড়িত থাকার পর নিষিদ্ধ পণ্যের ব্যবসায় আরও একটি মামলা ধরা পড়েছে।

বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ কথিতভাবে আবিষ্কার করেছে যে হাঙজু ইউনিয়ন বায়োটেকনোলজি কং লিঃ নামে একটি চীনা কোম্পানি বাংলাদেশে নিষিদ্ধ আইটেম রপ্তানির চেষ্টা করছে।

চলতি বছরের মে মাসে হাঙজু ইউনিয়ন বায়োটেকনোলজি কং লিঃ হল একটি নেতৃস্থানীয় চীনা ব্র্যান্ড যা মূলত খাদ্য সংযোজন এবং ফার্মাসিউটিক্যাল সামগ্রীতে নিযুক্ত। হাঙজু ইউনিয়ন বায়োটেকনোলজি কং লিঃ তার ঢাকা ভিত্তিক সহযোগীদের একজনকে সোডা অ্যাশ লাইটের একটি চালান পাঠানোর ঘোষণা করেছিল।

যাইহোক, শারীরিক পরীক্ষায়, বিডি কর্তৃপক্ষ সোডা অ্যাশ লাইটের লেবেলে লুকানো ১৯ টন (৭৮৮ প্যাকেট) সোডিয়াম সাইক্লামেট উদ্ধার করেছে। চালানটি চীনের সিএনটিএও কিংডাও বন্দর থেকে উদ্ভূত হয়ে চট্টগ্রামে এসেছে।

সোডিয়াম সাইক্লামেট মূলত এক ধরনের ঘনীভূত চিনি, যা সাধারণের চেয়ে ৩০ থেকে ৫০ গুণ বেশি মিষ্টি। বাংলাদেশ সরকার এসসিকে অবৈধ ও নিষিদ্ধ আইটেম হিসেবে ঘোষণা করেছে। তাই, এসসি-এর রপ্তানি/আমদানি, উৎপাদন বা ব্যবহার যেকোনো রূপে দেশে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এসসি সেবন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায়।

বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকে ফাঁকি দেওয়ার জন্য, হাঙজু ইউনিয়ন বায়োটেকনোলজি কং লিঃ একটি মিথ্যা ঘোষণা দিয়েছিল। বাংলাদেশে চীনা কর্মকর্তাদের দুর্নীতির আরেকটি মামলায়, কক্সবাজারের টেকনাফের সাবরাং ট্যুরিজম পার্কে বালি ভরাটের ঠিকাদার হিসেবে কাজ করা চায়না হারবার ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানির (সিএইচইসি) একজন কর্মকর্তাকে জরিমানা করা হয়েছে বলে জানা গেছে। ভরাট কাজের জন্য অবৈধভাবে বালি বিক্রির দায়ে বাংলাদেশী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ২.৫ লাখ টাকা জরিমানা এবং (৪ জুন) তিন মাসের কারাদণ্ড।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে চীনা কোম্পানি ও কর্মকর্তাদের অবৈধ কর্মকাণ্ডের এই প্রথম ঘটনা নয়। ২০২১ সালের ডিসেম্বরের শুরুতে, কর্তৃপক্ষ দেখতে পায় যে বাংলাদেশে সড়ক ও সেতু নির্মাণে নিযুক্ত চায়না রোড অ্যান্ড ব্রিজ কনস্ট্রাকশন (সিআরবিসি) কোম্পানি সরকারি প্রকল্পের নির্মাণ সামগ্রী আমদানির সময় কর ফাঁকির সঙ্গে জড়িত ছিল।

২০২২ সালের জানুয়ারিতে, একটি চীনা কোম্পানি ডিজি অ্যান্টি ফেক কোম্পানি নকল ব্যান্ডরোল (বিড়ি এবং সিগারেটের প্যাকেটের উপর মোড়ানো একটি পাতলা ফিতা) সরবরাহ করেছিল যার ফলে বাংলাদেশের জন্য ২৫০ কোটি টাকার জালিয়াতি কর ফাঁকি হয়েছে। বাংলাদেশি পাসপোর্ট, ব্যালট পেপার, জাতীয় পরিচয়পত্র, জন্ম নিবন্ধন সনদ ইত্যাদি জাল ছাপানোর সঙ্গেও এই কোম্পানির জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কর ফাঁকির আরেকটি মামলায়, চীনা কোম্পানি কমফ্লাই আউটডোর কং লিঃ-এর সহযোগী প্রতিষ্ঠান টিনয়ে আউটডোর (বি ডি) কং লিঃ প্রায় ২১ কোটি টাকা কর ফাঁকি ও জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

সম্প্রতি গ্লোবাল পেট প্রোডাক্ট কোম্পানি লিমিটেডের সহযোগী প্রতিষ্ঠান সিনো-কেমেড ট্রেডিং কো (এসকেটিসি) নামে একটি চীনা কোম্পানি বাংলাদেশে তার সহযোগীদের মধ্যে প্রলিপ্ত ক্যালসিয়াম কার্বনেটের আড়ালে ১২০ টন উচ্চ মূল্যের ডেক্সট্রোজ মনোহাইড্রেট অবৈধভাবে পাঠিয়েছিল। সময়মতো ধরা না পড়লে সরকারি কোষাগারের ৪২ লাখ ১৩ হাজার টাকার ক্ষতি হতো।

উপরোক্ত অসদাচরণের উদাহরণগুলো বাংলাদেশে চীনা কোম্পানিগুলোর কার্যক্রমের নিরপেক্ষ পর্যালোচনার নিশ্চয়তা দেয়। এই ধরনের মামলা প্রতিরোধ করার জন্য বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকে তাদের কর্পোরেট আইনি কাঠামোকে শক্তিশালী ও প্রয়োগ করতে হবে।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন