পোলিশ চালে পুষ্টি থাকে না- খাদ্যমন্ত্রী

33
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, এক শ্রেণির ব্যবসায়ীরা চাল ছেটে পোলিশের মাধ্যমে চকচকে করে বাজারজাত করেন। এতে চালের পুষ্টির অংশ ছাটাই হয়ে অপচয় হয়। পোলিশ করা চাল খাবো না এ আন্দোলন গড়ে তুলতে নিউট্রেশন ক্লাবের সদস্যদের এগিয়ে আসতে হবে।

আজ শনিবার (১ অক্টোবর) শের-ই- বাংলানগর কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্রের অডিটোরিয়ামে ‘আন্তর্জাতিক নিউট্রিশন অলিম্পিয়াড ২০২২’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. ইসমাইল হোসেন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক জুয়েনা আজিজ, শের-ই- বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. শহিদুর রশিদ চৌধুরী, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আব্দুস সাত্তার মন্ডল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্য বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের প্রফেসর ড. নাজমা শাহীন, গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ইম্প্রুভড নিউট্রেশন (গেইন) এর কান্ট্রি ডিরেক্টর  ডা. রুদাবা খন্দকার, নিউট্রিশন অলিম্পিয়াড এর উদ্যোক্তা বিবিআইডি ফাউন্ডেশন এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শহীদ উদ্দিন আকবর প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এফপিএমইউ’র মহাপরিচালক মো. শহীদুজ্জামান ফারুকী।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, এক গবেষণা প্রতিবেদনের তথ্য বলছে প্রতি ১০০ মেট্রিকটন চাল পোলিশ করলে ৫ মেট্রিকটন চাল অপচয় হয়, যার পুরোটাই চালের পুষ্টির অংশ। মনে রাখতে হবে চকচকে চালে পুষ্টি থাকে না। যে চাল খেয়ে জীবনধারণ করতে হয় তাতে পুষ্টি না থাকলে জনগণ অপুষ্টিতে ভুগবে। এটা হবে আমাদের জন্য পীড়াদায়ক।

সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে খাদ্যমন্ত্রণালয় দেশের সকল নাগরিকের জন্য নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে কাজ করছে।প্রতিটি জেলায় নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের কার্যক্রম চলমান আছে।পাশাপাশি তরুণ প্রজন্মকে পুষ্টি সচেতন করতে তাদেরকে সচেতনতা বৃদ্ধির কাজে সম্পৃক্ত করা হচ্ছে।

মন্ত্রী আরো বলেন, অপুষ্টি রোধে নিউট্রিশন ক্লাবের সদস্যরা বিশেষ করে তরুণেরা কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারে। তরুণদের আগামীর ভবিষ্যৎ উল্লেখ করে তাদের সৃজনশীলতা এবং নেতৃত্বদানের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য খাদ্য মন্ত্রণালয় সবধরনের সহায়তা করবে বলে তিনি উল্লেখ করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে বক্তরা বলেন, বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে কৃষির উৎপাদন কমছে,জমির পরিমান কমছে কিন্তু মানুষ বাড়ছে। আর এতে খাদ্য ও পুষ্টি হুমকির মুখে পড়ছে। এ অবস্থার পরিবর্তনে কৃষির ট্রান্সফরমেশন প্রয়োজন। এসময় ব্ক্তারা ভোক্তাকে শুধু উদরপূর্তি না করে পুষ্টি সমৃদ্ধ খাবারে গ্রহণে সচেতন হওয়ার আহবান জানান।

পরে মন্ত্রী দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক নিউট্রিশন অলিম্পিয়াড উদ্বোধন করেন এবং বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন। দুদিনের এ নিউট্রেশন অলিম্পিয়াডে তরুণ শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে ওয়ার্কিং সেশন, নিউট্রেশন কম্পিটিশন, সেমিনার,ডিবেট, পেইন্টিং এবং ইনোভেশন ল্যাব কার্যক্রম।
উল্লেখ্য,দুই দিনব্যাপী এবারের আন্তর্জাতিক নিউট্রেশন অলিম্পিয়াডে ৩০টি দেশের প্রতিনিধিগণ ভার্চুয়ালি অংশ নেন।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন