২৫ বছর পর কংগ্রেস সভাপতি হচ্ছেন গান্ধি পরিবারের বাইরের কেউ

29
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

প্রায় ২৫ বছর পর ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের শীর্ষ পদে আসতে যাচ্ছেন গান্ধি পরিবারের বাইরের কেউ। কংগ্রেসের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ঘিরে এমন জল্পনা-কল্পনা তুঙ্গে। মনোনয়ন দৌড়ে লড়াইয়ে এখন পর্যন্ত নাম জমা দিয়েছেন তরুণদের আইকন শশী থারুর এবং বর্ষীয়ান নেতা মল্লিকার্জুন খার্গের। আগামী জাতীয় নির্বাচনে বিজেপির বিরুদ্ধে জয়ের জন্যই দলের নেতৃত্বে এ পরিবর্তন আসছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

মহাত্মা গান্ধি, সরোজিনি নাইডু এবং নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোসের মতো মহারথীরা নেতৃত্ব দিয়েছেন ভারতের সবচেয়ে প্রাচীন রাজনৈতিক দল কংগ্রেসের। স্বাধীনতার ৪ বছর পর কংগ্রেসের নেতৃত্বে আসেন পণ্ডিত জওহরলাল নেহেরু। এরপর থেকেই দলটির নেতৃত্বের চাবিকাঠি নেহেরু-গান্ধি পরিবারের সদস্যদের হাতেই।

সবশেষ গান্ধি পরিবারের বাইরে কংগ্রেসের সভাপতি হয়েছিলেন সীতারাম কেসরি। ১৯৯৬ থেকে ৯৮, এই দুই বছর দলের নেতৃত্বভার সামলান তিনি। এরপরই দায়িত্বে আসেন সোনিয়া গান্ধি। দীর্ঘদিন সভাপতি থাকার পর তিনি ওই পদ ছাড়েন ছেলে রাহুল গান্ধির হাতে। তবে কিছুদিন পরই আবারও দায়িত্ব নেন সোনিয়া।

এবার প্রায় ২৫ বছর পর কংগ্রেসের নেতৃত্ব পেতে চলেছেন গান্ধি পরিবারের বাইরের কেউ। ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য ভোটে দলীয় প্রধান নির্বাচন করবেন প্রায় ৯ হাজার প্রতিনিধি। বর্ষীয়ান নেতা মল্লিকার্জুন খার্গে আর তরুণদের আইকনে পরিণত হওয়া শশী থারুরকেই চূড়ান্ত দুই প্রার্থী বলে মনে করছেন ভারতীয় গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বরা।

একসময়ের সংস্কারপন্থী এবং বিদ্রোহী বলে পরিচিত শশী থারুর আলোচনায় আসেন গেল ২ নির্বাচনের সময় বিভিন্ন বিতর্কে অংশ নিয়ে। কূটনীতিক, লেখক, সুবক্তা এবং সোশাল মিডিয়া সেলেব্রেটি ইমেজের শশী থারুর জনপ্রিয় তরুণদের কাছে। তরুণ ভোটারদের সমর্থনের জন্যই তাকে এগিয়ে রাখা হচ্ছে বলে মত বিশ্লেষকদের।

অন্যদিকে সিনিয়র নেতা মল্লিকার্জুন খার্গে যেন শশী থারুরের বিপরীত ব্যক্তিত্ব। থিঙ্কট্যাংক ইমেজ নয়, মাঠ কাঁপানো খার্গের রাজনীতির অভিজ্ঞতা ৫০ বছরের বেশি। ১৯৭২ সাল থেকে রাজ্য এবং কেন্দ্রের আইনপ্রণেতার দায়িত্ব পালন করে আসছেন মল্লিকার্জুন খার্গে। তার নেতৃত্বেই কর্ণাটকে শক্তিশালী অবস্থানে যায় রাজ্য কংগ্রেস। এমনকি রেলমন্ত্রীর মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বও সামলেছেন মল্লিকার্জুন খার্গে।

১৩৭ বছর আগে জন্ম নেয়া কংগ্রেস ভারতের শেষ দুটি সাধারণ নির্বাচনে বড় ব্যবধানে পরাজিত হয় হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপির কাছে। এর কারণ হিসেবে গান্ধি পরিবারের দুর্বল নেতৃত্বকেই দায়ী করেন অনেক নেতা। রাহুল গান্ধির প্রতি ক্ষোভ জানিয়ে দল ছাড়েন কংগ্রেসের অনেক প্রভাবশালী নেতাও।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন