গবেষণার কারণেই খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ দেশ: প্রধানমন্ত্রী

110
শুল্কমুক্ত বাণিজ্য চুক্তি বাস্তবায়নের তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

সফল গবেষণার কারণেই দেশ আজ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। আমদানি ব্যয়, মূল্যস্ফীতি সব মোকাবিলা করেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার (২ মার্চ) সকালে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেলোশিপ ও গবেষণা অনুদান প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এসময় পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাজ দ্রুত এগিয়ে নেয়ার কথাও জানান তিনি।

দেশকে এগিয়ে নিতে আরও বিজ্ঞানী দরকার উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী নতুন প্রজন্মকে প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন দক্ষ মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠার আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছি যার ভিত্তি বঙ্গবন্ধুই স্থাপন করে যান। ১৯৭৫ সালের ১৪ জুন রাঙামাটির বেতবুনিয়াতে তিনি দেশের প্রথম ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র স্থাপন করেন।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, জাতির পিতা এদেশের মানুষের উন্নয়ন ও মানুষের ভাগ্যোন্নয়ন করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি সেটা করে যেতে পারেননি। পঁচাত্তরে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। সে সময়ে প্রাণ হারান আমার পরিবারের ১৮ জন সদস্য।

শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে সমুদ্রসীমায় আমাদের যে অধিকার সে বিষয়ে কাজ শুরু করি। মাত্র ৫ বছরে আমরা সে কাজ সম্পন্ন করতে পারিনি। কিন্তু পরেরবার ক্ষমতায় এসে আমরা সে অধিকার বুঝে নিয়েছি। জাতির পিতা শুধু করেই দিয়ে যাননি, আমাদের জন্য সবকিছুর ভিত্তি প্রস্তর করে গেছেন তিনি।

সরকার প্রধান বলেন, একটা সময়ে বিজ্ঞান বিষয়ে শিক্ষার্থীদের আগ্রহ কম ছিল। কিন্তু একটা দেশের শিক্ষাক্ষেত্রে বিজ্ঞান ও গবেষণা কতটা জরুরি তা আমরা উপলব্ধি করি। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে দেশে ১২টি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে। শুধু নিজের দেশে নয়, বিদেশ থেকে জ্ঞান আহরণ করে দেশের উন্নয়নেও যেন ভূমিকা রাখতে পারে সে ব্যবস্থাও করেছে আওয়ামী লীগ সরকার।

শেখ হাসিনা এসময় বলেন, নভোথিয়েটার করতে গিয়ে খালেদা জিয়া আমার নামে দুইটা মামলা দিয়েছিলেন। সেগুলো কেন এবং কী কারণে আমি জানি না। যে কাজই করতে গিয়েছি সে কাজেই আমাকে মামলা দেয়া হতো। আমি মনে করি দেশে যত বেশি গবেষণা হবে তত বেশি উন্নয়ন হবে আমাদের। আমরা বলেছিলাম ডিজিটাল বাংলাদেশ করব আমরা সেটা করেছি।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন