তৃতীয় মেয়াদে চীনের প্রেসিডেন্ট হলেন শি জিনপিং

265
শেয়ার করতে ক্লিক করুন

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তর অর্থনীতির দেশ চীনের আবারও প্রেসিডেন্ট হলেন শি জিনপিং। শুক্রবার (১০ মার্চ) চীনা আইনপ্রণেতারা সর্বসম্মতিক্রমে শি জিনপিংকে তৃতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ভোট দিয়েছেন।

শুক্রবার (১০ মার্চ) যুক্তরাজ্য ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ ত্যথ জানানো হয়েছে।

শি জিনপিং ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেসে ২ হাজার ৯শ ৫২ ভোট পেয়েছেন। আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে আরও পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকার অনুমতি দিলো দলটি। এর আগে ২০১৮ সালেও সর্বসম্মতিক্রমে জিতেছিলেন তিনি। একই বছর দেশটির সরকার কিছু সাংবিধানিক বিধান বাতিল করে যা তাকে তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসতে বাধা প্রদান করতে পারে।

বেইজিংয়ের গ্রেট হল অব দ্য পিপল-এ ফলাফল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে আইনপ্রণেতারা উঠে দাঁড়ান এবং শির পক্ষে হাততালি দেন। শনিবারই দেশটির প্রধানমন্ত্রীর নাম ঘোষণা করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বার্ষিক আইনসভার এ বৈঠকে শিকে কেন্দ্রীয় সামরিক কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে পুনর্নিযুক্ত করা হয়। এটি এমন একটি পদ যা তাকে সক্রিয় কর্মীদের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বের বৃহত্তম সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান করে তোলে।

এনপিসি সাবেক দুর্নীতিবিরোধী প্রধান ঝাও লেজিকে তার নতুন নেতা হিসেবে নিযুক্ত করেছে। ওয়াং কিশানের স্থলাভিষিক্ত হ্যান ঝেংকে ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে রাখা হয়েছে।

হান হংকং তত্ত্বাবধানে একটি পার্টি গ্রুপ নেতৃত্বের অভিজ্ঞতা আছে। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, বেইজিং একটি জাতীয় নিরাপত্তা আইন জারি করেছে, রাজনৈতিক বিরোধী দলের সদস্যদের কারাগারে বন্দী করেছে এবং অনুগতদের আর্থিক কেন্দ্রের নেতৃত্ব নিশ্চিত করতে নির্বাচনী ব্যবস্থার পুনর্গঠন করেছে।

১৯৭০ এর দশকের শেষের দিকে চীন তার সংস্কার ও উদ্বোধনী পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর থেকে যে যৌথ নেতৃত্বের পদ্ধতি ব্যবহার করেছিল তা তিনি কার্যকরভাবে পরিত্যাগ করেছিলেন, বিনিয়োগকারীদের এবং অন্যদের মধ্যে উদ্বেগ জাগিয়েছিল যে শি তার ক্ষমতা বা নীতি সম্পর্কে কোনও প্রশ্নের সম্মুখীন হবেন না। চীনের নেতৃত্ব দেওয়ার একজন প্রাক্তন শীর্ষ প্রতিযোগী, হু চুনহুয়া, এমনকি পার্টির 24-সদস্যের পলিটব্যুরো থেকেও বাদ পড়েছিলেন।

এর আগে গতবছর ২২ অক্টোবর চীনির কমিউনিস্ট পার্টির (সিসিপি) সম্মেলনে শি জিনকে দলের মূল নেতা হিসেবে আবারও অনুমোদন দেওয়া হয়। আর এর মাধ্যমেই নজীরহীনভাবে তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় বসা পাকাপোক্ত হয় তার।

মাও সে তুংয়ের পর সবচেয়ে ক্ষমতাধর চীনা নেতা হিসেবে দেখা হয় শি জিনপিংকে। তৃতীয়বারের মতো প্রেসিডেন্ট হওয়ায় চীনের ক্ষমতায় তার নিয়ন্ত্রণ আরও শক্ত হবে। অনেকেই মনে করছেন, এমনও হতে পারে যে, জিনপিং আজীবনের জন্য ক্ষমতা ধরে রাখতে পারেন।

শেয়ার করতে ক্লিক করুন